কানাইঘাটে আ.লীগ-বিএনপির সংঘর্ষে আহত আব্দুল মালেক মারা গেছেন

18

সিলেট ব্যুরো: বিএনপির ডাকা অবরোধ কর্মসূচিতে সিলেটের কানাইঘাটে আওয়ামীলীগের সংঙ্গে বিএনপি কর্মী সমর্থকদের সংঘর্ষের ঘটনায় আহত আব্দুল মালেক (৬৩) মারা গেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। তার বাড়ি কানাইঘাট উপজেলার ৮নং ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের গাছবাড়ি তিনচটি গ্রামে। সিলেটের দক্ষিণ সুরমায় নর্থ ইস্ট মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ ভোরে তার মৃত্যু হয়।

জানা যায়, গত ২৮ অক্টোবর ঢাকার নয়াপল্টনে সরকার পতনের একদফা দাবিতে মহাসবেশ করে জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি। ওই সমাবেশ শুরুর পর পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়ায় নেতাকর্মীরা। দফায় দফায় হামলা ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনায় পণ্ড হয়ে যায় বিএনপি’র সমাবেশ। এর প্রেক্ষিতে ২৯ তারিখ সারাদেশে সকাল সন্ধ্যা হরতাল কর্মসূচি ডাকেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এরপর একদিন বিরতি দিয়ে আবারো ৩ দিনের অবরোধের ডাক দেয় বিএনপি জামায়াত। কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচি বাস্তবায়নে সিলেটের কানাইঘাট উপজেলায় হরতালের সমর্থনে মিছিল পিকেটিং করে উপজেলা ও পৌর বিএনপি নেতাকর্মীরা। একই দিন হরতালের সমর্থনে মিছিল করে জামায়াতে ইসলামী ও ইসলামী ছাত্রশিবিরের নেতাকর্মীরাও। বিএনপি ও জামায়াতের কর্মসূচির পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি দেয় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগও। একই সময় কানাইঘাট উপজেলার সদর বাজার এলাকায় শান্তি মিছিল বের করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। একপর্যায়ে তাদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও অগ্নি সংযোগের ঘটনা ঘটে। এসময় অন্তত ১৫জন আহত হন। এরমধ্যে উপজেলার ৮নং ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের গাছবাড়ি গ্রামের আব্দুল মালেক (৬৩) গুরুতর আঘাত পান। আশেপাশে থাকা মানুষজন তাকে উদ্ধার করে প্রথমে স্থানীয় একটি বেসরকারি ক্লিনিকে নেয়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে দক্ষিণ সুরমার নর্থ ইস্ট মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সকালে মারা যান আব্দুল মালেক (৬৩)।

এ ঘটনার নিন্দা ও ক্ষোভ জানিয়েছেন বিএনপি নেতারা। প্রতিবাদে নতুন কর্মসূচি না দেয়া হলেও, কেন্দ্র ঘোষিত ৩ দিনের সর্বাত্নক অবরোধ কর্মসূচি পালন করছে বিএনপি ও জামায়াতে ইসলামীর নেতাকর্মীরা। ঘটনায় নাশকতা ও ভাঙচুরের অভিযোগে বিএনপি নেতাদের নাম উল্লেখ করে কানাইঘাট থানায় একটি মামলা হয়েছে।