কমিউনিটি ক্লিনিকের জন্য ব্রাউন ইউনিভার্সিটির সম্মাননা পেলেন প্রধানমন্ত্রী

36

জনগণের দোরগোড়ায় স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দিতে কমিউনিটি ক্লিনিক মডেল চালু করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম প্রাচীন উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান ব্রাউন ইউনিভার্সিটি বিশেষ সম্মাননা দিয়েছে।

ব্রাউন ইউনিভার্সিটির ওয়ারেন অ্যালপার্ট মেডিকেল স্কুল মঙ্গলবার বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে ‘শেখ হাসিনা ইনিশিয়েটিভ’ হিসেবে জাতিসংঘের সাম্প্রতিক স্বীকৃতির জন্য অভিনন্দন জানিয়ে একটি সম্মাননা স্মারক প্রদান করে।

ইউএনবি জানায়, ইনস্টিটিউটের মেডিসিন অ্যান্ড বায়োলজিক্যাল সায়েন্সেসের ডিন ডা. মুকেশ কে জৈন মঙ্গলবার দ্য লোটে নিউইয়র্ক হোটেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে এই সম্মাননাপত্র হস্তান্তর করেন।

শেখ হাসিনা জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৮তম অধিবেশনে যোগ দিতে বর্তমানে নিউইয়র্কে অবস্থান করছেন।

প্রধানমন্ত্রীর উপ-প্রেস সচিব মো. নুর এলাহী মিনা সাংবাদিকদের বলেন, ‘ব্রাউন ইউনিভার্সিটির ওয়ারেন অ্যালপার্ট মেডিকেল স্কুল কমিউনিটি ক্লিনিকের উদ্যোগ গ্রহণের জন্য জাতিসংঘ কর্তৃক স্বীকৃতি পাওয়ায় প্রধানমন্ত্রীকে বিশেষ সম্মাননা প্রদান করেছে।’

সম্মাননাটিতে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘জাতিসংঘ কর্তৃক ‘শেখ হাসিনা ইনিশিয়েটিভ’ এর স্বীকৃতি পাওয়ায় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন।’

এতে আরও বলা হয়, ‘কমিউনিটি-ভিত্তিক প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবার একটি সফল মডেল: প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবা, নারীর ক্ষমতায়ন এবং সম্প্রদায়ের সম্পৃক্ততা প্রচারের মাধ্যমে সর্বজনীন স্বাস্থ্য কভারেজের জন্য একটি অংশগ্রহণমূলক ও অন্তর্ভুক্তিমূলক পদ্ধতি।’

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎকালে ডা. জৈন জনস্বাস্থ্য ও গবেষণাক্ষেত্রে জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা বিনিময়ের জন্য বাংলাদেশ-ব্রাউন বায়োমেডিকেল রিসার্চ অ্যান্ড এডুকেশন ইনিশিয়েটিভকে একটি সম্ভাব্য প্ল্যাটফর্ম হিসেবে বিবেচনা করেন।

প্রধানমন্ত্রী এই উদ্যোগের প্রশংসা করেন এবং এর প্রতি তার সমর্থন ব্যক্ত করেন।

শেখ হাসিনা বাংলাদেশে চিকিৎসা ও ক্লিনিক্যাল গবেষণার উন্নয়নের ওপর গুরুত্বারোপ করেন। তিনি বলেন, ‘আমরা সবসময় গবেষণাকে গুরুত্ব দিই। এটি চিকিৎসা বিজ্ঞান গবেষণায় বড় ভূমিকা রাখতে পারে।’

ব্রাউন ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে জরায়ু মুখের ক্যান্সার পরীক্ষা করে আসছে।

ডা. জৈন বলেন, তারা কমিউনিটি ক্লিনিকগুলোতে ইলেকট্রনিক ডেটা ম্যানেজমেন্ট চালু করতে বাংলাদেশকে সহায়তা করতে পারে, যাতে ক্লিনিকগুলো থেকে স্বাস্থ্যসেবা গ্রহণকারী রোগীদের রেকর্ড রাখা যায়।

ব্রাউন ইউনিভার্সিটি গবেষণা ও শিক্ষাক্ষেত্রে বাংলাদেশের সঙ্গে অংশীদারিত্ব গড়ে তোলার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। প্রতিষ্ঠানটি এ লক্ষ্যে একটি চুক্তি সইয়ের ইচ্ছাও প্রকাশ করেছে।