সেন্টমার্টিনে আটকা পড়া পর্যটকরা অবশেষে ফিরলেন

18

হেলাল উদ্দিন টেকনাফ প্রতিনিধি: বৈরী আবহাওয়া কেটে যাওয়ায় দুইদিন পর প্রবাল দ্বীপ সেন্টমার্টিনে আটকরা পড়া দুই শতাধিক পর্যটক সহ প্রায় ৬ শত পর্যটক টেকনাফ ফিরেছেন।

সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টার দিকে সেন্টমার্টিন থেকে টেকনাফের দমদমিয়া জেটি ঘাটে এসে পৌঁছে এমভি বার আউলিয়া নামের জাহাজটি। নিরাপদে পর্যটকরা টেকনাফ পৌঁছালে মুষলধারের বৃষ্টির মুখে পড়ে। আর সেই বৃষ্টিতে ভিজে ভিজে পর্যটকরা নেমে আছেন।

বার আউলিয়া জাহাজের পরিচালক হোসাইনুল ইসলাম বাহাদুর এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, নিরাপদে পর্যটকরা ফিরেছেন। তবে ফিরেই বৃষ্টিস্নাত হয়েছেন। সোমবার সকালে ৩৮৮জন পর্যটক নিয়ে জাহাজ সেন্টমার্টিনের উদ্দেশে রওনা করে। দুপুর সাড়ে ১২ টায় সেন্টমার্টিনে পৌঁছে। সেন্টমার্টিন থেকে বিকাল সাড়ে ৩ টায় টেকনাফের উদ্দেশ্যে যাত্রা দিয়ে সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টায় টেকনাফ এসে পৌঁছে।

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপের কারণে সাগর উত্তাল থাকায় গত শনি ও রোববার দুইদিন এই নৌরুটে সব ধরনের নৌযান চলাচল বন্ধ ছিল। এতে গত বৃহস্পতি ও শুক্রবার সেন্টমার্টিন ভ্রমনে যাওয়া দুই শতাধিক পর্যটক আটকা পড়েছিলেন।

টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ আদনান চৌধুরী বলেন, আবহাওয়া পরিস্থিতি অনুকূলে আসায় জাহাজ সেন্টমার্টিন গিয়েছিল। পর্যটকরা নিরাপদে ফিরেছেনও।

ইউএনও বলেন, বিশ্ব পর্যটন দিবসকে সামনে রেখে সেন্টমার্টিনে পর্যটক যাতায়াতের জন্য এমভি বার আউলিয়া নামের একটি জাহাজ এক সপ্তাহের জন্য অনুমোদন দেওয়া হয়েছিল। আবহাওয়া পরিস্থিতির ওপর জাহাজ চলাচল নির্ভর করবে।

এদিকে গত শুক্রবার টেকনাফ থেকে সেন্ট মার্টিন যাওয়ার পথে একটি স্পীডবোট নাইক্ষ্যংদিয়া এলাকায় উল্টে যায়। এতে সেন্টমার্টিন ইউনিয়নের সাবেক ইউপি সদস্যের মৃত্যু হয়েছে। এ সময় ১৭ পর্যটকসহ ২৩ জনকে কোস্ট গার্ডের সদস্যরা উদ্ধার করেছে।