‘শেখ রাসেল বেঁচে থাকবে সমৃদ্ধ তারুণ্যের অফুরান প্রাণশক্তিতে’

12

শেখ রাসেল শুভ্র শৈশবের প্রতীক। সে সমৃদ্ধ তারণ্যের অফুরান প্রাণশক্তিতে বেঁচে থাকবে বলে মন্তব্য করেছেন রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ূন কবীর।

বুধবার (১৮ অক্টোবর) দুপুরে রাজশাহী জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব বলেন।

শেখ রাসেলের ৬০তম জন্মদিবস রাজশাহী জেলা প্রশাসন ‘শেখ রাসেল দীপ্তিময় নির্ভীক নির্মল দুর্জয়’- শীর্ষক এ আলোচনা সভার আয়োজন করে।

ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ূন কবীর বলেন, পৃথিবীতে যত রাষ্ট্র ক্ষমতার পরিবর্তন হয়েছে, অভ্যূত্থানের ঘটনা ঘটেছে, কোথাও এত নিষ্ঠুরতা দেখা যায়নি। যেটা- ৭৫’র ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং তাঁর পরিবারের সাথে ঘটেছে।

বিভাগীয় কমিশনার বলেন, শেখ রাসেল ছিল ক্ষণজন্মা শিশু। সে ছিল দুরন্ত, সাহসী, দায়িত্বশীল ও মেধাবী। তার পরিবারের সবার কাছে সে ছিল অনেক স্নেহের। শেখ রাসেলকেও সেদিন ঘাতকরা বাঁচতে দেয়নি। যে শিশুটি নিজের পোষা কবুতর, মুরগির মাংস খেত না। তার চোখ খোলা রেখেই সেদিন ঘাতকরা সর্টরেঞ্জ দিয়ে তার মাথায় গুলি করে হত্যা করেছিল।

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে হুমায়ূন কবীর বলেন, যেখানেই থাক ভালো মানুষ হও, সুসন্তান হও এবং শৃঙ্খলার মধ্যে বড় হও। নিজে অন্যায় করা যাবে না এবং অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী হতে হবে। এই দিবসের মাধ্যমে শিশুহত্যার বিচার দেখতে চাই। সকল জঞ্জাল মারতে চাই, সুরক্ষা দিতে চাই ভবিষ্যতের সকল শিশুকে।

অভিভাবকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, সন্তান ক্লাসে প্রথম বা দ্বিতীয় হলো সেটা মূখ্য বিষয় নয়; বিষয় হলো সন্তানদের মানুষের মতো মানুষ তৈরি করা।

সকল ষড়যন্ত্রের মোকাবিলা করতে হবে। বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে বাঙালি এগিয়ে যাচ্ছে। আমরা একটি সুন্দর বাংলাদেশ দেখতে চাই। স্মার্ট বাংলাদেশ হবে ২০৪১ সালের মধ্যে এবং ২০৭১ সালে উন্নত ও সমৃদ্ধ সোনার বাংলা হবে পৃথিবীর অনন্য একটি দেশ বলেও উল্লেখ করেন বিভাগীয় কমিশনার।

অনুষ্ঠানে মুখ্য আলোচক ছিলেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের লোক প্রশাসন বিভাগের অধ্যাপক ড. প্রনব কুমার পাণ্ডে।

জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন রাজশাহী রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি (প্রশাসন ও অর্থ) রশিদুল হাসান, আরএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (প্রশাসন ও অর্থ) মোহাম্মদ হেমায়েতুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) আবু সালেহ মো. আশরাফুল আলম।

এর আগে বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয় থেকে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়। শোভাযাত্রাটি নগরীর প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে জেলা শিল্পকলা একাডেমি চত্বরে গিয়ে শেষ হয়। অনুষ্ঠান শেষে দিবস উপলক্ষ্যে আয়োজিত সাংস্কৃতিক পরিবেশনা ও বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন বিভাগীয় কমিশনার।