উখিয়ার লাল পাহাড় থেকে অস্ত্র-গুলিসহ আরসার ৩ সদস্য গ্রেফতার

15

হেলাল উদ্দিন, টেকনাফ প্রতিনিধি: কক্সবাজারের উখিয়ার ২০ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের পশ্চিমে অবস্থিত পাহাড়। এ পাহাড়ের চারপাশে সবুজ হলেও, পাহাড়ের নাম লাল পাহাড়। রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে অনুমানিক ৫ কিলোমিটার গহীনে নিরাপদ আস্তানা তৈরি করেছে মিয়ানমারের সন্ত্রাসী গোষ্ঠি আরসার সন্ত্রাসীরা। সেখানে সহজে ভয়ে কেউ যেতে চায় না। আর সেই পাহাড়ে দিনে অবস্থান করে রাতে ক্যাম্পে এসে নাশকতা সহ হত্যার মিশন বাস্তবান করে থাকে ‘আরসা। লাল পাহাড়ের আস্তানায় অভিযান চালিয়ে দেশীয়  ২২টি  অস্ত্র, ৪টি হাত বোমা, ককটেল  তৈরির সরঞ্জাম, একে ৪৭ সহ বিভিন্ন অস্ত্রের ১০০ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করেছে র‌্যাব ১৫। এসময় গ্রেপ্তার করা হয়েছে আরসার ৩ সন্ত্রাসীকে।

গ্রেপ্তারকৃত আসামীরা হলেন উখিয়া বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্পের রোহিঙ্গা উসমান(৩০),  আব্দুল সালামের পুত্র মোঃ নেছার (৩৩), এবং উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পের  কামাল হোসেনের পুত্র ইমাম হোসেন (২২)।গ্রেফতারকৃত ব্যাক্তিরা  বিভিন্ন ক্যাম্পের বাসিন্দা।

বৃহস্পতিবার ভোর থেকে দুপুর পর্যন্ত এ অভিযান চালানো হয়েছে বলে গণমাধ্যমেকে জানিয়েছেন র‌্যাব ১৫ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল এইচ এম সাজ্জাদ হোসেন।

তিনি বলেন, লাল পাহাড়ে আরসা সন্ত্রাসীদের অবস্থানের খবর পেয়ে বিশেষ  অভিযান পরিচালনা করি। কিন্তু র‌্যাবের উপস্থিতি  টের পেয়ে পালিয়ে যায় অনেকেই। আভিযানিক দল  ধাওয়া দিয়ে  উসমান, নেছার ও ইমানকে আটক করেন । তাদের আস্তানা থেকে উদ্ধার করা হয় দেশি বিদেশি ২২ টি অস্ত্র, ১০০ রাউন্ড গুলি, ৪টি হাত বোমা , হাত বোমা  তৈরির সরঞ্জাম ও গোলাবারুদ।

তিনি আরও বলেন, আরসার শীর্ষ গান কমান্ডার উসমান, মাইন তৈরিতে পারদর্শী নেছার ও গুলি চালাতে পারদর্শী ইমান। তিনজনই দিনে অবস্থান করে লাল পাহাড়ের আস্তানায়। রাতে ক্যাম্পে হামলা করে বলে তারা স্বীকার করেছে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ল’ এন্ড মিডিয়া মোঃ আবু সালাম চৌধুরী জানান,আরসা প্রধান আতাউল্লাহর নির্দেশে ক্যাম্পে গড়ে তোলা হয় ১২টি গান গ্রুপ। যারা ক্যাম্পে নাশকতা করছে।

এ ব্যাপারে মামলা করে গ্রেপ্তারদের উখিয়া থানায় সোপর্দ করা হয়েছে বলে জানান তিনি।