অবৈধ পথে আসা ২৫ হাজার কেজি চিনি জব্দ

10

আহমেদ শরীফ রনি, নেত্রকোনা প্রতিনিধি: নেত্রকোনার কলমাকান্দায় সীমান্ত দিয়ে অবৈধ পথে আসা প্রায় ২৫ হাজার কেজি ভারতীয় চিনি জব্দ করেছে প্রশাসন। এ সময় পরিবহনে ব্যবহৃত একটি পিকআপ ভ্যান করা হয়েছে। ভ্যানে ৪৯৯ বস্তায় ২৪ হাজার ৯৫০ কেজি ছিল। এসবের বাজার মূল্য আনুমানিক ২৫ লাখ টাকা বলে প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে। তবে এ ঘটনায় জড়িত কাউকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি।

বুধবার (১ নভেম্বর) রাত সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলার নাজিরপুর ইউনিয়নের বেতুয়া এলাকা থেকে এসব চিনি জব্দ করা হয়।

প্রিয়দেশ নিউজ কে কলমাকান্দা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আসাদুজ্জামান বিষয়টি নিশ্চিটত করেছেন।

উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার নাজিরপুরের বাখলা নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। বুধবার দিবাগত রাতে স্থানীয় এক ব্যক্তি ৯৯৯ এ ফোন দিয়ে এ বিষয়টি জানান। খবর পেয়ে রাতেই অভিযানে নামেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আসাদুজ্জামান। পথে বেতুয়া বাজার এলাকায় একটি পরিত্যক্ত ঘরে ভারতীয় চিনি মজুদ করতে দেখতে পান তিনি। সেখানে অভিযান চালিয়ে চিনি ভর্তি একটি পিকআপ ভ্যানসহ ৪৯৯ বস্তা ভারতীয় চিনি জব্দ করা হয়। জব্দ করা চিনির মূল্য আনুমানিক ২৫ লাখ টাকা হবে। পরে রাত সাড়ে ৪টার দিকে জব্দ করা চিনি ও পিকআপ ভ্যানটি থানায় হস্তান্তর করা হয়। এ ঘটনায় কলমাকান্দা থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সুরুজ আলী বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন।

ইউএনও আসাদুজ্জামান বলেন, নদী থেকে অবৈধভাবেই বালু উত্তোলন করা হচ্ছে— এমন খবরে অভিযানে বের হই। পথে ভারত থেকে অবৈধভাবে কলমাকান্দা সীমান্ত দিয়ে চিনি এনে বেতুয়া বাজারের একটি পরিত্যক্ত ঘরে মজুদ করা হচ্ছে দেখতে পেয়ে সেখানে অভিযান চালানো হয়। টের পেয়ে গাড়ির চালকসহ চোরাকারবারিরা দ্রুত সটকে পড়েন। পরে সেখান থেকে একটি পিকআপ ভ্যানসহ ৪৯৯ বস্তা ভারতীয় চিনি জব্দ করে থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, পরে নাজিরপুরের বাখলা নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনকারীদের একটি ড্রেজারসহ বিভিন্ন সরঞ্জাম ভেঙে দেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, চিনির মূল্য বৃদ্ধি পাওয়ায় নেত্রকোনা সীমান্ত দিয়ে চোরাই পথে চিনি আসছে অহরহ। মাঝে মধ্যে পুলিশের হাতে ধরাও পড়ছে। কখনো সাধারণ মানুষও চিনির গাড়ি আটক করছে। অভিযোগ আছে, চোরাচালান প্রতিরোধ সংশ্লিষ্ট সবাইকে ম্যানেজ করে চোরাচালানিরা তাদের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। চিনিকাণ্ডে এ পর্যন্ত জেলায় পাঁচজন নিহত হয়েছেন।