সাংবাদিক ইমরানের মৃত্যু দুর্ঘটনায়, নাকি হত্যা

এম. মতিন, চট্টগ্রাম: চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায় কাঠ বোঝাই চাঁদের গাড়িচাপায় নিহত হওয়া দৈনিক আমাদের সময়ের রাঙ্গুনিয়া প্রতিনিধি ও প্রকৌশলী সাংবাদিক ইমরানের মৃত্যুর রহস্য উদ্ঘাটন ও তদন্তের দাবিতে মানববন্ধন করেছে বন্ধু-স্বজন ও রাঙ্গুনিয়ার সর্বস্তরের জনগণ।

কাপ্তাই-চট্টগ্রাম মহাসড়কের রাঙ্গুনিয়া উপজেলার গোডাউন চত্বরে এ মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশে অবৈধ ফিটনেসবিহীন চাঁদের গাড়ির দৌরাত্ম বন্ধ ও নিরাপদ সড়ক নিশ্চিতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপের আহবান জানিয়ে পাক্ষিক রূপালি রাঙ্গুনিয়ার সম্পাদক এনায়েতুর রহিম বলেন, গত এক বছরে রাঙ্গুনিয়া উপজেলার প্রতিশ্রুতিশীল ১২ জন তরুণ এসব বেপরোয়া, ফিটনেসবিহীন চাঁদের গাড়ির চাপায় মারা গেলেও কোন চালক বা গাড়ির মালিককে কখনো আইনের আওতায় আনা হয়নি।

তিনি আরও গত এক দশকে রাঙ্গুনিয়ার কাপ্তাই সড়কে অর্ধশতাধিক নিহত ও শতাধিক পঙ্গু হয়েছে। এসব গাড়ির মালিকরা রাজনৈতিকভাবে প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে কেউ ব্যবস্থা নেয়নি। অবিলম্বে ইমরানের মৃত্যুর পেছনে প্রকৃত ঘটনা উদঘাটন করে দোষীদের বিচারের মুখোমুখি করতে হবে।

রাঙ্গুনিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যাবিষয়ক সম্পাদক নিজাম উদ্দিন বাদশা বলেন, এসব চাঁদের গাড়ির কারনে সড়কে যাতায়াত অনিরাপদ হয়ে পড়েছে। এগুলোর বিরুদ্ধে প্রশাসনকে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়ার আহবান জানান তিনি।

রাঙ্গুনিয়া উপজেলার যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ইউনুচ বলেন, অবৈধ চাঁদের গাড়ি চলাচল নিষিদ্ধ করে রাঙ্গুনিয়ার সড়কে শৃংখলা নিয়ে আসতে হবে। ইমরান হত্যায় দোষী চালকের শাস্তি নিশ্চিতের আহবান জানান তিনি।

সাংবাদিক এম. মতিন বলেন, বলা হচ্ছে ইমরান সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছেন। তাঁর মৃত্যু আমরা মেনে নিচ্ছি। কিন্তু তার মৃত্যু কীভাবে হলো সেই তথ্যও আমাদের জানার অধিকার আছে। ইমরানের মৃত্যুর আলামত দেখে সন্দেহ তৈরি হচ্ছে, সে সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছে নাকি হত্যা করা হয়েছে? রহস্য উদ্ঘাটন হওয়া দরকার। তাই আমি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও গোয়েন্দা সংস্থার কাছে দাবি জানাই, সে কীভাবে মারা গেল তা যেন প্রকাশ করা হয়।

সরফভাটা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক মোহাম্মদ জমির হোসেন বলেন, আমাদের জীবন জিম্মি হয়ে পড়েছে অবৈধ চাঁদের গাড়ির কাছে। প্রতিনিয়ত এসব গাড়ি সাংবাদিক, রাজনৈতিক কর্মী ও সাধারণ মানুষ পিষে মারছে। এদের বিরুদ্ধে সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।

সংবাদকর্মী মোস্তফা ইউসুফ বলেন, সাংবাদিক ইমরান তার লেখনির কারনে অনেকের চক্ষুশুল হয়েছিলেন। হুমকিও পেয়েছিলেন। শেষ পর্যন্ত রহস্যময় সড়ক দুর্ঘটনায় ইমরানের মৃত্যু হয়েছে। চাঁদের গাড়ি একদিকে রাঙ্গুনিয়ার সবুজ পাহাড়-বন শেষ করছে, অন্যদিকে সড়কে পিষে মারছে মানুষদের।

অবিলম্বে প্রকৃত কারণ উদ্ঘাটন করে দোষীদের শাস্তির আওতায় আনা ও ঘটনার পেছনের কুশিলবদের মুখোশ উন্মোচন করার আহবান জানান তিনি।

সাংবাদিক মুবিন বিন সোলাইমানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত প্রতিবাদ সমাবেশে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, রাঙ্গুনিয়া উপজেলা যুবলীগ নেতা হাসান মুরাদ, আবু তালেব সানি, নিহত ইমরানের বন্ধু প্রকৌশলী আজাদুর রহমান, প্রবাসী কাজী আরিফ, সাংবাদিক মামুন জোয়ারদার, সাংবাদিক সানি বড়ুয়া, রাঙ্গুনিয়া উপজেলা ছাত্রলীগর সাধারণ সম্পাদক আলী শাহ, ক্ষেত্রবাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. হাসান, নিহত ইমরানের বাবা রুস্তম আলী, যুবলীগ নেতা শাহ আলম, ইউপি সদস্য দিদার আলম খোকন ও ক্ষেত্রবাজার ব্যবসায়ীর নেতা জাহাঙ্গির আলম প্রমূখ।

উল্লেখ্য, গত ৩০ ডিসেম্বর রাতে উপজেলার মরিয়মনগরে নির্মাণাধীন নতুন ঘরের কাজ দেখে মোটরসাইকেল চালিয়ে সরফভাটায় নিজ বাড়িতে ফিরছিলেন ইমরান। চট্টগ্রাম-কাপ্তাই সড়কের রোয়াজারহাট মধুবনের সামনে এসে দাঁড়ায় ইমরান। এসময় বিপরীত দিক থেকে আসা কাঠ বোঝাই দ্রুতগামী চাঁদের গাড়ি ধাক্কা দিলে ঘটনাস্থলে তার মৃত্যু হয়।